মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
দেশের বিচারব্যবস্থায় হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে ঢাবি শিক্ষকদের মানববন্ধন
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ৪:১০ PM আপডেট: ০৪.০৯.২০২৩ ৪:২০ PM
নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পক্ষে বিশ্বনেতাদের চিঠিকে বাংলাদেশের স্বাধীন বিচারব্যবস্থার ওপর হস্তক্ষেপ দাবি করে প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

সোমবার (৪ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এই মানববন্ধনে তারা এ দাবি করেন।

এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, দেশের নাগরিক সমাজ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৬৬ জন শিক্ষক এবং ৫০ সংবাদপ‌ত্রের সম্পাদক যেসব বিবৃতি সেগুলো অত্যন্ত সুলিখিত ও লক্ষ্যভেদী। এ দুঃসময়ে সেই বিবৃতিগুলোর আ‌মি ভুয়সী প্রশংসা করি। ড. ইউনূসের গতিবিধি, বক্তব্য ও তার কাজকর্ম আমরা দীর্ঘদিন ধরে পর্যবেক্ষণ করছি। তার টার্গেট বঙ্গবন্ধুকন‌্যা শেখ হাসিনা ও মু‌ক্তিযু‌দ্ধের বাংলা‌দেশ। ইউনূসের বিরুদ্ধে ১৬৮টি মামলা রয়েছে। তার মধ্যে দুটি হচ্ছে ফৌজদারি মামলা। বাকিগুলো কর ফাঁকিসহ নানা মামলা। গ্রামীণ টেলিকমের মামলা রয়েছে ৬৪টি। গ্রামীণ কল্যাণের মামলা রয়েছে ৬৯টি, গ্রামীণ কমিউনিকেশন ২৫টি, গ্রামীণ ফিশারিজ ৮টি সহ ১৬৮টি মামলা রয়েছে। এখন প্রশ্ন হলো এই মামলাগুলো কে করেছে? এই মামলাগুলো করেছে তারাই যারা ড. ইউনূ‌সে প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। সরকার তো তার বিরুদ্ধে কোন মামলা করেনি। তাহলে কী কারণে না জেনে না বুঝে বিশ্ববরেণ্য ১৬০ জন ব্যক্তি বিবৃতি দিলেন।

তিনি বলেন, ১৯৯৮ সালের আগস্ট মাস থেকে ১৯৯৯ সালের জানুয়ারি মাস পর্যন্ত কিস্তি বাকি পড়ায় তিনি দরিদ্র মানুষের বি‌রো‌দ্ধে ১৩ হাজার সা‌র্টিফি‌কেট মামলা করেছিলেন। সে সময় অনেক দরিদ্র মানুষ আত্মহত্যা পর্যন্ত করেছেন। তিনি ১৩ হাজার মামলা করার পরও বিবৃতি দিয়েছেন আইনের চোখে সবাই সমান। তাহলে তিনি কি আইনের চোখে সমান নন? আমাদের সংবিধানের ২৭ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী আইনের দৃষ্টিতে সকলেই সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভকারী। কাজেই ইউনূসের অপনৈ‌তিক কাজকর্মের বিরুদ্ধে যারা মামলা দায়ের করেছেন তাদেরও আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার রয়েছে। আইনের ওপর ভিত্তি করে এ মামলাগুলো ফয়সালা হবে সেটিই কাম্য।

তিনি আরও বলেন, তিনি একটি রাজনৈতিক দল তৈ‌রি করেছিলেন। সরকার পরিচালনার খায়েশ তার হয়েছিল। কিন্তু সেই সময়ে তার ডাকে কেউ সাড়া দেয়নি। যে প্রতিষ্ঠান ১৬০ জ‌নের বিবৃ‌তি প্রচার ক‌রে‌ছে তারা টাকার বিনিময়ে ক‌রে‌ছে। তাহলে কত লাখ ডলার খরচ করে এই বিবৃতিটি দেওয়া হয়েছে? আর সেই সময়ে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে যখন বাংলা‌দে‌শে এক‌টি জাতীয় নির্বাচন আসন্ন। আমরা একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সেটি করবেন এবং তিনি সেই অঙ্গীকার করছেন। এই সময়ে এসে ডক্টর ইউনূস ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন। তিনি এর আগে পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র করেছিলেন যাতে পদ্মা সেতু না হয়। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ কিংবা অসাম্প্রদায়িক রাজনীতির কোনো কিছুর সাথে কখনো যুক্ত হননি। তিনি কখনো শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধে যাননি। তিনি জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কখনো কথা বলেন না। তার প্রথম টার্গেট বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। আমরা বিশ্বাস ক‌রি শেখ হাসিনা বাংলাদেশের অস্তিত্বের প্রতীক। স্বাধীনতার প্রতীক। মুক্তিযুদ্ধের প্রতীক। কাজেই শেখ হাসিনার ওপর যে আঘাত আসছে, আমাদের স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, বাংলাদেশ ও স্থায়িত্বশীল চলমান গণতন্ত্র ব্যবস্থার ওপর যে আঘাত আসছে আমরা তার প্রতিবাদ জানাই। যারা বিবৃতি দিয়েছে তাদের বলব আপনারা এসব বিবৃতি দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। প্রয়োজনে আইনজীবী পাঠান এবং এই মামলাগু‌লোর বিচার প্রক্রিয়ার মধ্যে কোনো ত্রুটি রয়েছে কিনা দেখুন। সরকার সব ধরনের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত। আমরা চাইবো এ ধরনের আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র যাতে না হয়। এই ধরনের দূরভিসন্ধিমূলক অপ‌চেষ্টা ও ষড়যন্ত্র বাংলাদেশের মানুষ ঐক‌্যবদ্ধভা‌বে প্রতিহত করবে।

এ সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল বলেন, আমাদের বিচারব্যবস্থাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য ড. ইউনূস পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের নোবেল বিজয়ী, রাজনৈতিক ব্যক্তিদের দিয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছেন। যারা বিবৃতি দিয়েছেন তারা সেই বিবৃতিটিকে পড়েছেন কিনা একজন শিক্ষক হিসেবে আমার প্রশ্ন আছে। এই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চলমান বিচার প্রক্রিয়াকে স্থগিত করে দেওয়ার জন্য। যে চলমান প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে অধ্যাপক ড. ইউনূস প্রায় ১২০০ কোটি টাকা শ্রমিকদের দেওয়ার জন্য সময় আদালতে রায় হয়েছে। সাড়ে ৪০০ কোটি টাকা তিনি ইতোমধ্যে প্রদান করেছেন। কর ফাঁকির জন্য ১২ কোটি টাকা তিনি প্রদান করেছেন। তিনি বিচার ব্যবস্থা মেনে নিয়েছেন এবং বিচারব্যবস্থা মেনে নিয়ে তিনি যেখানে আপিল করার দরকার ছিল তিনি সেখানে আপিল করেছেন। তিনি যে ধরনের সুবিধা নেওয়ার দরকার ছিল সেই সকল সুবিধা নিয়ে চলমান বিচার ব্যবস্থাকে বন্ধের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

তিনি বলেন, এ দেশের শ্রম আইনে বলা হয়েছে যে পরিমাণ নিট ইনকাম তার পাঁচ শতাংশ শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়ন দিতে হবে। সেই পাঁচ শতাংশ টাকা আগে দেওয়া হলো না কেন। মামলার পরে কেন দেওয়া হল। নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পর তিনি বলেছিলেন নোবেল পুরস্কারের অর্থ তিনি গরিবদের জীবনমানে উন্নয়ন এবং শিক্ষার জন্য ব্যয় করবেন। আমার প্রশ্ন হলো কোন জায়গায় শিক্ষার জন্য তিনি ব্যয় করেছেন। তিনি গরিব মানুষের জন্য কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলেছেন এই টাকা দিয়ে এমন কোনো নজির আমার জানা নেই।

তিনি আরও বলেন, তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে দিয়ে বাংলাদেশের বিচারব্যবস্থার উপরে চাপ প্রয়োগ করতে চাচ্ছেন। একটি দেশের স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের বিচারব্যবস্থার কে প্রশ্নবিদ্ধ করার অর্থই হলো দেশের সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত আনা। আপনি কেন শহীদ মিনারে যান না, কেন স্মৃতিসৌধে যান না, কেন আপনি বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে চান না। এগুলো কি দেশ প্রেমের অংশ নয়। আপনার কি দেশপ্রেম আছে। যদি আপনার দেশ প্রেম থাকতো তাহলে কোটি কোটি টাকা খরচ করে এতগুলো মানুষকে দিয়ে আপনি বিজ্ঞাপন দিতেন না। আপনার কাছে যদি ম্যাটারিয়ালস থাকতো তাহলে তো সেখানে খবর হত। অর্থ দিয়ে বিজ্ঞাপন ছাপানো ছাড়া আর কোনো প্রক্রিয়ায় আমরা আপনাকে অগ্রহর হতে দেখিনি। আপনাকে বলব বাংলাদেশে সুবিচারের ব্যবস্থা এখনো রয়েছে। আপনি বাংলাদেশের নাগরিক। আপনি এদেশের সুবিধা গ্রহণ করে বড় হয়েছেন। আপনি এ দেশের মানুষের জন্য কাজ করেন।

ফার্মেসি অনুষদের ডিন ও নীল দলের আহ্বায়ক অধ্যপক ড. সীতেশ চন্দ্র বাছার বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন দেশের ১৬০ জন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, নোবেলবিজয়ী ব্যক্তিবর্গ এবং কয়েকজন বিশিষ্ট নাগরিক বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে এক খোলা চিঠির মাধ্যমে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের শ্রম আদালতে চলমান বিচারিক প্রক্রিয়া স্থগিত করার দাবি জানিয়েছেন। অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের স্বার্থরক্ষার্থে দেওয়া বিবৃতিটিতে ‘বাংলাদেশে মানবাধিকার, গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের ওপর আক্রমণ চলছে' বলে যে দাবি করা হয়েছে তা অমূলক ও ভিত্তিহীন। দেশের প্রচলিত আইনে চলমান একটি মামলা নিয়ে এ ধরনের বক্তব্য আইনের শাসন ও মানবাধিকারের পরিপন্থি। এটি আন্তর্জাতিক আইন, রীতিনীতি ও শিষ্টাচার বিবর্জিত এবং একটি রাষ্ট্রের স্বাধীন বিচারব্যবস্থা ও সার্বভৌমত্বকে অসম্মান প্রদর্শনের শামিল। বাংলাদেশের বিচারব্যবস্থা এবং সার্বভৌমত্বের ওপর এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত হস্তক্ষেপে আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।

তিনি বলেন, ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা বিচারাধীন। তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদে ৬০ বছরে অবসরে যাওয়ার আইন অমান্য করে ৭০ বছর বয়সেও ওই পদ ছাড়তে সম্মত ছিলেন না। এ সংক্রান্ত মামলায় তিনি বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আইনি লড়াইয়ে হেরে যাওয়ার পরে গ্রামীণ ব্যাংকের পদ ফিরে পেতে আন্তর্জাতিক সংস্থা ও প্রভাবশালী দেশে লবিং করেছেন। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে রাজস্ব ফাঁকি, দাতা তহবিলের অর্থ বেআইনিভাবে হস্তান্তর, শ্রম আইন লঙ্ঘন ও ক্ষমতার অপব্যবহারসহ নানা ধরনের অভিযোগ আছে। অতি সম্প্রতি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালতে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা কর ফাঁকির অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে এবং তিনি আদালতের রায় মেনে নিয়ে ধার্যকৃত কর পরিশোধ করেছেন। আমরা আশা করি ড. ইউনূসের পক্ষে বিবৃতিদাতা সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ বাংলাদেশের আইনকানুন ও রীতিনীতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন এবং আইনগত ও সাংবিধানিক বিধি-বিধান অনুধাবন করবেন। অযাচিত ও অনভিপ্রেত বিবৃতি দিয়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের বিচারিক ও রাষ্ট্রীয় কর্মকাণ্ডে হস্তক্ষেপ করা থেকে বিরত থাকতে শিক্ষকসমাজ সবাইকে আহ্বান জানাচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভুইয়া, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. জিনাত হুদা, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবদুল বাছির, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আব্দুস ছামাদ, সামাজিকবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. জিয়া রহমান, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহাম্মদ হাসান বাবু, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক ও সাবেক প্রক্টর অধাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানী, ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের সিনিয়র শিক্ষক অধ্যাপক ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান, ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বাহাউদ্দিন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আবুল মনসুর আহাম্মদ, শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের প্রাধ্যক্ষ আবদুর রহিম, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. বিল্লাল হোসেন, কবি জসীমউদিদন হলের প্রাধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ শাহীন খান প্রমুখ।

আজকালের খবর/ওআর








সর্বশেষ সংবাদ
মার্কিন শ্রমনীতি পোশাক রপ্তানিতে নেতিবাচক অবস্থা তৈরি করতে পারে: পররাষ্ট্র সচিব
স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাহান ভূঁইয়ার কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা-হয়রানি
একদিনে দশটি পথসভা, উঠান বৈঠক ও একটি জনসভা করেন সাজ্জাদুল হাসান এমপি
নতুন বছরে সুদহার বাড়ছে
শেখ হাসিনার প্রতি আস্থা রেখেই আজকের উন্নত বাংলাদেশ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
রাজপথের আন্দোলনে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে: মুরাদ
অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে অনন্য ভূমিকায় ইসলামী ব্যাংক
ইতিহাসের মহানায়ক: একটি অনন্য প্রকাশনা
নতুন বই বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
এক দিনে সারাদেশে ২১ নেতাকে বহিষ্কার করল বিএনপি
Follow Us
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮, ই-মেইল : বার্তা বিভাগ- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
কপিরাইট © আজকালের খবর সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft