মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
একটি গল্প, কিছু অভিজ্ঞতা এবং সহস্র বেদনা
রহিম আব্দুর রহিম
Published : Tuesday, 13 February, 2018 at 4:00 PM

এক সপ্তাহের অধিক সময় ভারতে ছিলাম। গত ৩০ জানুয়ারি যাওয়া হয়েছিল, উদ্দেশ্য গ্লোবাল থিয়েটার ফেস্টিভালে অংশগ্রহণ। উড়িষ্যা রাজ্যের কটাক শহরের কলাবিকাশ কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত উৎসবে ভারতের ১২ টি রাজ্যের  ৫১টি দল, আফ্রিকা মহাদেশের মরক্কো’র ১ টি এবং বাংলাদেশ থেকে একমাত্র পঞ্চগড় বিদ্রোহী শিশু কিশোর থিয়েটার এই উৎসবে অংশগ্রহণ করে। হত-দরিদ্র ১৫ জন শিক্ষার্থী নিয়ে গঠিত দলটির দলনেতা, নাট্যকার এবং নির্দেশক হিসাবেই আমার যাওয়া হয়েছিল। উৎসবে কথা হয়েছে, ভারতের অন্যান্য রাজ্যের অংশগ্রহণকারী কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে। প্রতিবছর ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে এধরনের নিয়মিত উৎসব করার কারণ জানতে চেয়েছি। তারা জানিয়েছেন, পরস্পরের মধ্যে সাংস্কৃতিক বন্ধন দৃঢ়করণ এবং স্বদেশের রুপ-সৌন্দর্যে আকৃষ্ট করে ভিনদেশী পর্যটকদের আনাগোনা বাড়ানো। এবার আমি তাদের জিজ্ঞেস করেছিলাম, আপনারা কেন বাংলাদেশ ঘুরতে যান না? উত্তরে এসেছিল, ‘শুনেছি বাংলাদেশে রেল যোগাযোগ তেমন নেই। বাসে ভিড়, সড়কে জ্যাম, ভ্রমণে মজা নেই।’

২৮ জানুয়ারি থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত নাট্য উৎসব শেষে ভ্রমণের পালা। কটাক থেকে কলকাতার উদ্দেশ্যে যাত্রা। কটাকের রাজধানী ভুবেনশ্বরের কাছাকাছি পৌঁছলে ট্রেনে কথা হলো রবীন্দ্রনাথ মিশ্রের সঙ্গে। তিনি জানতে চাইলেন, আমরা কোথা থেকে এসেছি, কেন এসেছি? বললাম উৎসবের কথা। এবার তিনি আমাদের নাটকের ধারণকৃত ভিডিও দেখতে আগ্রহী। দলের বহন করা ল্যাপটপ চালু করে দেখানো হলো ৭১’এর মুক্তিযুদ্ধের গোয়েন্দা কাহিনী নিয়ে নির্ভর বাংলাদেশের পরিবেশনা। নাটকের গল্প, আবহসঙ্গীত, কোরিওগ্রাফ। সব মিলিয়ে তিনি মুগ্ধ। পাশেই বসা ছিলেন উড়িষ্যার ভদ্রাক নামক জায়গার বাসিন্দা, তিনিও এই নাটকটির ভিডিও দেখেছেন,  যিনি গুজরাটের আহমেদাবাদ শহরে দীর্ঘদিন যাবৎ ঠিকাদারী ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। তিনি আমার কানে কানে বললেন, ‘আমার কাছে একটি গল্প আছে, যা দিয়ে আপনি নাটক বানাতে পারবেন।’ বললাম বলুন, ‘কিছু মনে করবেন না তো?’ বললাম, নো নো বলুন। ‘আপনারা কি পাসপোর্ট-ভিসা করে এসেছেন? বললাম অবশ্যই।

তিনি বললেন, ‘ওদের তো পাসপোর্ট-ভিসা নেই, জানতে চাইলাম ওরা কারা? তিনি বললেন, আপনার দেশের অসংখ্য তরুণ যুবতীরা ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের বিউটি পার্লারের আড়ালে দেহব্যবসায় যুক্ত।’ আমি বললাম ওরা আমার দেশের আপনি কি করে জানলেন? তিনি বললেন, ‘আমি খদ্দের হিসেবে এক নারীর করুণ কাহিনী জেনেছি। এই নারী বাংলাদেশের একটি গার্মেন্টসের কর্মী ছিল। ভারতের এক ব্যবসায়ী ওই গার্মেন্টসের কর্তাব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ করে ওই নারীকে আরও ভাল চাকরি দেওয়ার লোভ দেখিয়ে ভারতে এনে এই নরককুণ্ডে নিক্ষেপ করেছে। মেয়েটি এখান থেকে অব্যাহতি পেতে আমাকে বার বার অনুরোধ করেছে। আপনি যখন নাট্যকার, এদের নিয়ে নাটক লিখুন। এই মেয়ে অব্যাহতি না পেলেও হয়তো অসংখ্য নারী এ ধরণের জঘন্য মানুষদের হাত থেকে রক্ষা পাবে।’

এবার তাকে জিজ্ঞেস করলাম এটা তো একটি ঘটনা, অসংখ্য নারী কোথায়? তিনি বললেন, সারা ভারতের প্রায় রাজ্যেই পতিতাবৃত্তির সঙ্গে জড়িত ওপারের (বাংলাদেশের) নারীরা সম্পৃক্ত। তিনি যে গল্প শোনান, তাতে তিনি স্পষ্ট করে উল্লেখ করেছেন ঘটনাটি গুজরাটের আহমেদাবাদ শহরের। তিনি তার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে গুজরাট, মুম্বাই ও মহারাষ্ট্র রাজ্যের বিভিন্ন শহরের, বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রের পতিতাদের কথা তুলে ধরেছেন। তার কথা আমার বিশ্বাস হয়েছে। কারণ, আমার জন্মস্থান জামালপুর জেলার তারারভিটা  গ্রামের প্রতিবেশী খোকন (৩০) নামের এক গার্মেন্টস কর্মীকে অধিক বেতনে চাকরি দেওয়ার নামে মুম্বাইয়ে পাচার করা হয়েছিল। পাসপোর্ট-ভিসাহীন এই খোকন অনেক চরাই-উৎরাই পেরিয়ে বছরখানেক আগে দেশে ফিরেছে।

বর্তমান সরকার দেশের বিভিন্ন সেক্টরের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে। এই গার্মেন্ট শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধিতে সরকারের অবদান উল্লেখযোগ্য। গার্মেন্টস ফ্যাক্টরির আড়ালে বিভিন্ন দেশে নারী শ্রমিক পাচারের ব্যবসা বন্ধে সরকারের অতি দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি হয়ে পড়েছে। এক্ষেত্রে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে নারী শ্রমিকদের নিয়োগ, ছাঁটাই, চাকুরীচ্যুতের ক্ষেত্রে অবশ্যই রাষ্ট্রীয় ডাটাবেজ পদ্ধতি চালু, রাষ্ট্রীয় নজরদারি এবং শ্রমিক শ্রেণির অভিভাবকদের সঙ্গে সকল প্রকার যোগাযোগ ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করন।

উৎসব শেষে ফেরার পথে মনে পড়লো সদ্য বিলুপ্ত ছিটমহলের ওপারের (ভারতের) বাসিন্দাদের কথা। জানতে ইচ্ছে হলো কেমন আছে তারা? সাধারণের সাথে কথা না হলেও কথা বলেছি নব্য ভারতের অধিবাসী মশালডাঙ্গার জয়নুল, পোয়াতুরকুটিরের সাদ্দামের সঙ্গে। যারা ছিটমহল বিনিময়ের গ্রন্থিমোচন আন্দোলনে সর্বকনিষ্ঠ তরুণ নেতা হিসাবে অসামান্য অবদান রেখেছে। কথা বলেছি ছিটমহল বিনিময় আন্দোলনের পুরোধা প্রয়াত দীপক সেনগুপ্তের ছেলে দীপ্তিমান সেনগুপ্তের সঙ্গে। নানাবিধ প্রশ্নের উত্তরে নিশ্চিত হয়েছি, ওরা-ভালোই আছে, রাস্তাঘাট, বিদ্যুতায়ন হয়েছে। নতুন কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠেনি। আধার কার্ড, ভোটার কার্ড পেয়েছে ঠিকই, কিন্তু বিনা পয়সায় চিকিৎসার জন্য এখনও স্বাস্থ্য কার্ড মেলেনি। বিনিময় হওয়া জায়গা-জমি রাষ্ট্রীয়ভাবে রেকর্ড হয়েছে বটে, তবে ভোগদখলকারীরা রাষ্ট্রীয়ভাবে এখনও কোনো দলিলপত্র পায়নি।

নব্যভারতীয় সাধারণরা ভালো থাকলেও বুঝতে পারছে রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যকার স্নায়ুযুদ্ধের ঝাঁল কত কঠিন! রাজনৈতিক রেষারেষিতে তাদের ত্রাহি ত্রাহি অবস্থা। একসময় সহজ-সরল, নিরীহ, রাষ্ট্রীয় অধিকারবঞ্চিত মানুষ হিসেবে যারা বাংলা এবং ভারতের মানবিক সহানুভূতির কাঙাল ছিল, তারা কেন রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়ল? এমন প্রশ্নের উত্তরে পোয়াতুকুটির নব্য ভারতীয় সাদ্দাম, যে তরুণ এখন রাজ্য সরকারে সমর্থনকারী; সে বলল, ‘রাজনৈতিক আদর্শ লালন ও বিশ্বাস করা মনের ব্যাপার, প্রকাশ্যে রাজনীতি করাও অধিকার। আমরা এই অধিকারের জন্যই দীর্ঘদিন অপেক্ষা করেছি। রাজনীতি করা দোষেরই বা কি? তবে রাজনীতির করার ইচ্ছা ছিল না, পরিস্থিতি বাধ্য করেছে। এক্ষেত্রে মশালডাঙ্গার তরুণ জয়নুল জানালো, ‘দীপ্তিমান সেনগুপ্ত আমাদের রাষ্ট্রীয় অধিকার ফেরাতে যে আন্দোলন করেছে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতেই তার আদর্শ ধারণ করে কেন্দ্রীয় সরকারের রাজনীতিতে সর্ম্পৃক্ত হয়েছি।  কিন্তু এই রাজনৈতিক অধিকারে যে বিষের কাটা তা এখন বুঝতে পারছি। এ ব্যাপারে দীপ্তিমান সেনগুপ্তের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, ‘আমি তিনটি কারণে কেন্দ্রীয় রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছি। তার একটি হলো আদর্শের, জন্মদাতা পিতাকে যথাযথ মর্যাদা দানে ব্যর্থ সন্তান যেমন অকৃতজ্ঞ। তেমনি রাষ্ট্রীয় অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার সম্মানে ভূষিত সরকারের প্রতি সমর্থন না জানানো জ্ঞান পাপের কাজ।  দ্বিতীয়ত, বিলুপ্ত ৫১টি ছিটমহলের উন্নয়নে কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষিত নয়শত আশি কোটি রুপির যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য দাবী আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া  এবং তৃতীয়ত রাজ্য সরকার যাতে ছিটমহলের উন্নয়নের অর্থ লুটপাট না করতে পারে তা ঠেকানো।’ সব মিলিয়ে বুঝতে বাকি নেই উন্নয়ন যাই হোক না  কেন রাজনৈতির রেষারেষিতে পড়ে মানবিক উন্নয়ন যে পিষ্ট হচ্ছে তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

বর্তমান বাংলাদেশ এবং ভারত সরকারের মধ্যে যে সুসম্পর্ক তাতে উভয় দেশের মধ্যে কোনো প্রকার জটিলতা থাকার কথা নয়। কারণ, উভয় দেশের সরকার বিশ্ব মানবিক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের মধ্যে ছিটমহল বিনিময় ও পৃথিবীর মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশ  সরকার রোহিঙ্গা ইস্যুতে যে মানবিক মূল্যবোধের পরিচয় দিয়েছে তা বিশ্ব মানবিক উন্নয়নের নন্দিত অন্যতম নিদর্শন। আমরা ভৌত অবকাঠামো নয়, মানবিক উন্নয়নের উৎকর্ষতাই চাই। এক্ষেত্রে  ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্রীয় সরকারের নেতাকর্মীদের মানুষ নিয়ে রাজনীতি নয়, মানুষের জন্য রাজনীতি করার ব্রত গ্রহণই হবে মানবিক উন্নয়নের মূল সোপান।

রহিম আব্দুর রহিম: সাংবাদিক ও নাট্যকার


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮।  বিজ্ঞাপন- ০১৯৭২৫৭০৪০৫, ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সাকুলের্শন- ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com