শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮
রাজধানীতে ভোটের আমেজ
হাবীব রহমান ও মোজাম্মেল হক তুহিন
Published : Tuesday, 9 January, 2018 at 10:07 PM, Update: 10.01.2018 2:03:33 PM

২৬ ফেব্রুয়ারি ভোট ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র উপ-নির্বাচনের।  আগে থেকেই চলছিল নির্বাচনী আলাপ-আলোচনা। মঙ্গলবার  নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণার পরই গতি পেয়েছে নির্বাচনী হাওয়া। ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের পাশাপাশি দুই সিটিরই বর্ধিত ৩৬ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর নির্বাচনের ভোটগ্রহণ ওই একইদিন। তাই পুরো রাজধানীতেই নির্বাচনী আমেজ। 

তফসিল ঘোষণার আগেই আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সবুজ সংকেত পেয়ে মাঠে নেমেছেন ব্যবসায়ী নেতা আতিকুল ইসলাম। আর বিএনপির প্রার্থী হিসেবে আনুষ্ঠানিক ঘোষণার অপেক্ষায় আছেন গতবার নির্বাচনে অংশ নেওয়া দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল। সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি প্রার্থী দেওয়ার মতো যোগ্য নেতা পাচ্ছে না। তবে ভোটযুদ্ধে অংশ নিতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)আব্দুল্লাহ আল ক্বাফী রতন, চরমোনাই পীরের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের শেখ ফজলে বারী মাসউদ। ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা গাজী ইয়াকুব ও জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম) গায়ক শাফিন আহমেদ।

আওয়ামী লীগের হয়ে আগেই মাঠে আতিকুল ইসলাম 
নির্বাচন নিয়ে আলোচনার শুরুর পর থেকেই ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে  আওয়ামী লীগের সবুজ সংকেত পেয়ে মাঠে নেমেছেন ব্যবসায়ী নেতা আতিকুল ইসলাম। তিনি  চালিয়ে যাচ্ছেন গণসংযোগ। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন কয়েকবার। ইতোমধ্যে সিটি এলাকার দলীয় নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের সঙ্গে ধারাবাহিক মতবিনিময় করছেন। 

আজও সারাদিন আতিকুল ইসলাম গণসংযোগ করেছেন উত্তর সিটির ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে। সেখানকার খিলক্ষেত এলাকায় গণসংযোগ জনসভায় রূপ নেয়। এফবিসিসিআই সভাপতি সাইফুল ইসলাম মহিউদ্দিনসহ ব্যবসায়ী নেতা ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের নেতারা এতে উপস্থিত ছিলেন। পরে নিকুঞ্জ এলাকায় গণসংযোগ করেন।

গত শনিবার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে ঢাকা সিটি নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আতিকুল ইসলামকে দলীয় প্রার্থী করার ইঙ্গিত দেন। দলের নেতারাও নিশ্চিত হয়েছেন, আতিকই হচ্ছেন দলীয় প্রার্থী। তবে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী মনোনয়ন বোর্ডে আলোচনার পর প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী আজকালের খবরকে বলেন, প্রার্থী অনেকটা চূড়ান্ত। দলীয় ফোরামে আলোচনার পর ঘোষণা আসবে।
 
নির্বাচন প্রস্তুতির বিষয়ে আতিকুল ইসলাম আজকালের খবরকে বলেন, আমি কাজ করে যাচ্ছি। দলের ঘোষণা দেওয়ার পর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করবো। তিনি বলেন, প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক ঢাকা উত্তর সিটিকে বদলে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছিলেন। তার কাজকে এগিয়ে নেওয়ার প্রতিশ্রুতিতে আমি নির্বাচন করবো। আনিসুল হক তার কাজ যে জায়গায় রেখে গেছেন আমি সেখান থেকে শুরু করতে চাই। দলের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থী ঘোষণা হলে নির্বাচনী কমিটি গঠন ও নির্বাচন পরিচালনা সংক্রান্ত পরিকল্পনা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, সব প্রস্তুত করে রাখা আছে, আনুষ্ঠানিকতা বাকি। 

এদিকে দলীয় সূত্র জানিয়েছে, জাতীয় নির্বাচনের আগে এ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা হচ্ছে। সম্ভাব্য সব ঝুঁকি মোকাবিলার চিন্তা মাথায় রেখেই ব্যবসায়ী আতিকুল ইসলামকে বেছে নেওয়া হচ্ছে দলীয় প্রার্থী হিসেবে। 

আনুষ্ঠানিক ঘোষণার অপেক্ষায় তাবিথ
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) উপ-নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে চ‚ড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা হবে শনিবার। মঙ্গলবার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের কাছে এই তথ্য জানান। তিনি বলেন, শনিবার স্থায়ী কমিটির বৈঠকের পর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) উপ-নির্বাচনে জোটের প্রার্থী চূড়ান্ত করবে বিএনপি। ওই দিনেই তা গণমাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। এদিকে সোমবার রাতে ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠকেও ডিএনসিসির উপ-নির্বাচনে প্রার্থী নিয়ে আলোচনা হয়েছে। 

বৈঠকের একটি সূত্র জানায়, ২০ দলীয় জোটের ব্যানারেই ডিএনসিসির উপ-নির্বাচনে অংশ নেওয়া হবে। আর প্রার্থীও দেওয়া হবে ২০ দলের পক্ষেই। বৈঠকে অংশ নেওয়া জোটের এক শীর্ষ নেতা জানান, বৈঠকে প্রার্থী হিসেবে গতবারের প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের নাম আলোচনায় এসেছে। অন্য দু-একজনের নাম আসলেও সেগুলো বিচ্ছিন্নভাবে। তবে প্রার্থী চূড়ান্ত করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জোট নেত্রী খালেদা জিয়াকে।

প্রার্থিতার বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে তাবিথ আউয়াল আজকালের খবরকে বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে এখনও আমার সাক্ষাৎ হয়নি। তারপরও আমি আশাবাদী যে, বিএনপি তথা ২০ দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পাব।’

এদিকে নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণার পর বিকালে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সাবেক কমিশনার ও বিএনপি নেতা আব্দুল মজিদের জানাজা শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে ডিএনসিসির উপনির্বাচন নিয়ে কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, ‘সোমবার রাতে ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে জোটের শীর্ষ নেতারা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ের দায়িত্ব বিএনপি চেয়ারপাররসন খালেদা জিয়াকে দিয়েছেন। তারা বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যাকে মনোনয়ন দেবেন, জোট তাকেই সমর্থন দেবে।

তিান আরও বলেন, আমি যতটুকু জানি, ১৩ জানুয়ারি শনিবার বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠক হবে। সেই বৈঠকেই ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উপনির্বাচনের প্রার্থী চ‚ড়ান্ত করা হবে। এরপরই তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দেওয়া হবে। এদিকে ২০ দলীয় জোটের শরিক জামায়াতে ইসলামী দলের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি সেলিম উদ্দিনকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করলেও ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। বৈঠকে অংশ নেওয়া কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা আব্দুল হালিম জানান, বৈঠকে জামায়াতের প্রার্থীতা নিয়ে আলোচনা হয়। এ সময় আমাদের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে জানানো হয়েছে, অনানুষ্ঠানিক প্রার্থী। জোটের সিদ্ধান্তই চ‚ড়ান্ত সিদ্ধান্ত। এ নিয়ে আমাদের কোন আপত্তি নেই। 

যোগ্য প্রার্থী পাচ্ছে না জাতীয় পার্টি
মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুর পর থেকেই ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের উপনির্বাচন নিয়ে তোড়জোড় চলছে। আওয়ামী লীগ-বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিলেও সংসদের বিরোধীদল জাতীয় পার্টি এক্ষেত্রে নিশ্চুপ। তারা ‘যোগ্য মেয়র প্রার্থী’ খুঁজে পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন দলটির একাধিক নেতা। এক্ষেত্রে জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কাছ থেকে এ নির্বাচনের বিষয়ে কোনো গ্রিন সিগন্যাল পাননি।’

রংপুর সিটি করপোরেশনে ভূমিধস বিজয়ের পর দলের নেতাকর্মীরা মনে করেছিলেন ডিএনসিসিতে শক্তিশালী প্রার্থী দেবে এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। কিন্তু দলটির ভেতরে এ নিয়ে আপাতত কোনো আলোচনা নেই বললেই চলে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতবারের নির্বাচনের অভিজ্ঞতা থেকেই ডিএনসিসিতে প্রার্থী দেওয়ার বিষয়ে কোনো আগ্রহ নেই দলের চেয়ারম্যানের। কারণ গতবার ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণের সিটি নির্বাচনে জামানত হারিয়েছেন জাপার প্রার্থীরা। অন্যদিকে রংপুরের সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীর বিশাল বিজয়ে ঢাকা সিটিতে প্রার্থী দিয়ে বিপর্যয়ে পড়তে চান না তিনি। এছাড়াও জাপা চেয়ারম্যানের আগামী টার্গেট হচ্ছে গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের উপনির্বাচন নিয়ে। সেখানে জয়ের মতো প্রার্থী রয়েছে জাতীয় পার্টির।

নির্বাচনে প্রার্থী দেওয়ার বিষয়ে জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের বলেন, ‘এখন পর্যন্ত আমাদের দল এ নির্বাচন নিয়ে কোনো চিন্তা করছে না।’ এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘এখানে দেওয়ার মতো আমাদের যোগ্য প্রার্থী নেই। যারা আছেন, তারা ঠিক কতটা নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুত আছেন, তা আমার জানা নেই।’

একই কথা জানান পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ্র রায়। তিনি জানান, এখনও কিছু ঠিক হয়নি। চেয়ারম্যান কোনো নির্দেশনা দেননি।’ 

লড়বে সিপিবি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ইসলামী ঐক্যজোট ও এনডিএম
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন উপনির্বাচনে সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লাহ আল ক্বাফী রতনকে মনোনয়ন দিচ্ছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)। দলের সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম এ তথ্য জানিয়েছেন। আব্দুল্লাহ আল ক্বাফী রতন ২০১৫ সালেও ডিএনসিসি নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। ওই বছর তিনি হাতি মার্কা নিয়ে দুই হাজার ৪৭৫টি ভোট পেয়েছিলেন। সেবার তিনি ‘সবার জন্য বাসযোগ্য ঢাকা আন্দোলনের ব্যানারে প্রার্থিতা করেছিলেন।’ সিপিবি ও বাসদ সমর্থিত ছিলেন ক্বাফী রতন। 

জানতে চাইলে আব্দুল্লাহ ক্বাফী রতন বলেন, ‘দলীয়ভাবে প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিতে আমাকে বলা হয়েছে। গত নির্বাচনেও আমি প্রার্থী হয়েছি। আশা করি এবারও প্রার্থী হব।’

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী হচ্ছেন শেখ ফজলে বারী মাসউদ
এনসিসি উপনির্বাচনে চরমোনাই পীরের নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী হচ্ছেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ। ২০১৫ সালেও এ সিটি নির্বাচনে তিনি দলের পক্ষে প্রার্থী হয়েছিলেন। সেই নির্বাচনে প্রায় ১৮ হাজার ভোট পান তিনি।

ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী মাওলানা গাজী ইয়াকুব
ঢাকা উত্তর সিটি (ডিএনসিসি) করপোরেশন উপনির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ঘোষণা করেছে ইসলামী ঐক্যজোট। গত রবিবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ইসলামী ঐক্যজোটের সমাবেশে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। ডিএনসিসির উপনির্বাচনে দলের সহকারী মহাসচিব মাওলানা গাজী ইয়াকুবকে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দেন মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ।

এনডিএমের প্রার্থী হচ্ছেন গায়ক শাফিন
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) উপনির্বাচনে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম) মনোনীত মেয়র প্রার্থী হচ্ছেন গায়ক শাফিন আহমেদ। গত সোমবার রাজধানীর বনানী চেয়ারম্যানবাড়ি মাঠে সচেতন তরুণ সমাজ আয়োজিত এক প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ উদ্বোধন করে জনপ্রিয় এ গায়ক প্রচারণায় নামেন।

এ সময় শাফিন আহমেদ বলেন, ‘ঢাকা শহরে নিরাপদ খেলার মাঠের অভাব রয়েছে। আমি মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হলে ডিএনসিসি এলাকায় যেসব খেলার মাঠ ব্যবহার অনুপযোগী এবং অবৈধভাবে দখল হয়ে আছে, তা দ্রুততম সময়ের মধ্যে সংস্কার করে সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেব।’

উত্তর সিটি নির্বাচনে আইনি বাধা নেই: সিইসি
তফসিল ঘোষণা করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যাপারে ইসি আপসহীন। এ ছাড়া ঢাকা উত্তরের সিটি কাপোরেশন নির্বাচন করতে আইনি কোনো বাধা নেই। রাজধানীতে এ নির্বাচন করা ইসির জন্য চ্যালেঞ্জ। এ নির্বাচনকে আলাদা গুরুত্ব দিয়ে দেখবে ইসি। আমি আশা করি সবাই নির্বাচনে অংশ নেবে এবং শেষ পর্যন্ত থাকবে।  এ সময় অন্য নির্বাচন কমিশনার, ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব ও জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৮ জানুয়ারি। মনোনয়নপত্র বাছাই ২১ ও ২২ জানুয়ারি। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ জানুয়ারি। আর ভোট হবে ২৬ ফেব্রুয়ারি।

সিইসি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারবেন। এতে কোনো আইনি বাধা নেই।

ব্যালট ছিনতাই বা জোর করে বাক্সে ব্যালট পেপার ঢুকিয়ে দেওয়ার ঘটনা হলে কমিশনের ভ‚মিকা তখন কেমন থাকবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিইসি বলেন, আমরা দেখবো, বিচার বিশ্লেষণ করবো এবং যদি ভোট বন্ধ করার মতো পর্যায়ে যায়, তাহলে বন্ধ করার ক্ষমতা কমিশনের আছে। গতবারও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ভোট বর্জন করেছিল। এবার তেমন ঘটনা ঘটবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, সে সময় কেনো তারা নির্বাচন বর্জন করেছেন, সেটি আমি বলতে পারবো না। তবে এবার তারা নির্বাচনে থাকবেন বলে আশা করি। নির্বাচনী প্রচারণার জন্য সবাইকে সমান সুযোগ দেয়া হবে। কমিশনের পক্ষ থেকে কারো প্রতি শৈথিল্য দেখানো হবে না।

এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, রংপুর সিটি করপোরেশনের মতো ঢাকা উত্তর সিটিতে একটি এবং দক্ষিণ সিটিতে একটি ইভিএম ব্যবহার করার চিন্তা আছে। যদি সব কিছু ঠিকঠাক থাকে আর যদি কারো কোনো আপত্তি না থাকে তাহলে দুটি ওয়ার্ডে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। এই তফসিলে ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন হবে। এ ছাড়া ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণে নতুন যুক্ত হওয়া ১৮টি করে ৩৬টি সাধারণ ওয়ার্ড এবং ছয়টি করে ১২টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নির্বাচন হবে।

ডিএনসিসিতে বর্তমান ভোটার সংখ্যা ২৯ লাখ ৪৮ হাজার ৫১০ জন। এই সিটি করপোরেশনের সম্প্রসারিত ১৮টি ওয়ার্ডে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ২৩১টি, ভোটকক্ষ ১ হাজার ২৩১টি, অস্থায়ী ভোটকক্ষের সংখ্যা ৫৬টি। এসব ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৭৭ হাজার ৫১০ জন। প্রসঙ্গত, লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০১৭ সালের ৩০ নভেম্বর মারা যান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

আজকালের খবর/এসএ



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮।  বিজ্ঞাপন- ০১৯৭২৫৭০৪০৫, ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সাকুলের্শন- ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com