শনিবার, ২০ জানুয়ারি, ২০১৮
শেষ ইচ্ছা মেনে বিয়ে, তারপরই মৃত্যু ক্যান্সার আক্রান্ত তরুণী
অনলাইন ডেস্ক
Published : Monday, 8 January, 2018 at 5:45 PM

জীবনের শেষ শব্দগুলি উচ্চারণ করছিলেন হেদার। যাকে সবচেয়ে বেশি ভালোবেসেছিলেন, যার সঙ্গে জীবন কাটাতে চেয়েছিলেন, তার সঙ্গেই জীবনের শেষ মুহূর্তগুলি কাটালেন তিনি। বিয়ের সময় করা প্রতিশ্রুতিই হেদারের মুখে থেকে বেরনো শেষ শব্দ হয়ে রয়ে গেল।

ইন্টারনেটে কতগুলি ছবি এখন ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। হেদার এবং ডেভিডের বিয়ের মুহূর্তগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখে বহু মানুষের চোখ ভিজে যাচ্ছে। অনেকে আবার এই ঘটনা থেকে জীবনকে নতুন করে খুঁজে পাচ্ছেন। গত ২২ ডিসেম্বর ক্যান্সার আক্রান্ত প্রেমিকা হেদারকে বিয়ে করেন ডেভিড মোশার। তার ১৮ ঘণ্টার মধ্যে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন হেদার।

২০১৫ সালে ডেভিডের সঙ্গে দেখা হয় হেদারের। প্রথম দেখাতেই বুঝতে পারেন, জীবনসঙ্গীকে পেয়ে গিয়েছেন। ভালোই কাটছিল সময়। ডেভিড ঠিক করেন বিয়ের জন্য প্রপোজও করবেন হেদারকে। মাঝে কয়েকটা দিন বেশ অসুস্থতার মধ্যে কাটাতে হয় হেদারকে। চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে কিছু টেস্ট করান তিনি। ২০১৬-র ২৩ ডিসেম্বর টেস্টের রিপোর্ট হাতে পান হেদার। রিপোর্টে লেখা ছিল, মারণ ক্যান্সারে আক্রান্ত তিনি। লাস্ট স্টেজ।

কাকতালীয়ভাবে সেই একই দিনে ডেভিডও ঠিক করেন হেদারকে প্রপোজ করবেন। হাতে আংটি নিয়ে দেখা করতে গিয়ে খবর শুনে পাথর হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তবে দ্রুত স্বাভাবিক হয়ে হেদারকে পরিকল্পনা মতো প্রপোজ করেন। ডেভিডের কথায়, ‘হেদার জানত না যে আমি সে দিনই প্রপোজ করব। আমি চাইনি জীবনের শেষ যুদ্ধ ও একা লড়ুক। তাই শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত পাশে থাকার অঙ্গীকার করে হাতে আংটি পরিয়ে দিয়েছিলাম সে দিন।’

মাস খানেকের মধ্যেই হাসপাতালে ভর্তি হতে হয় হেদারকে। শারীরিক পরিস্থিতির ক্রমাগত অবনতি হতে থাকে। আমেরিকার সেন্ট ফ্রান্সিস ক্যান্সার হাসপাতালেই জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ছিলেন হেদার। তার পরিণতি যে মৃত্যু তা ডেভিড আগেই জানতেন। তাও ভেঙে পড়েননি। গত ৩০ ডিসেম্বর হাসপাতালেই হেদারকে বিয়ে করবেন বলে ঠিক করেন তিনি। কিন্তু দ্রুত অবস্থার অবনতি হওয়ায় বিয়ের দিন এগিয়ে নিয়ে আসা হয়। ২২ ডিসেম্বর নিকটাত্মীয় এবং কয়েকজন বন্ধু-বান্ধবদের সামনে বিয়ে করেন ডেভিড-হেদার।

শয্যাশায়ী হলেও হেদারের আনন্দ ছিল দেখার মতো। অন্তহীন মৃত্যুর অপেক্ষায় দিন গোনা এক তরুণী যে এত প্রাণবন্ত হতে পারেন তা না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন হতো। সাধারণত বিয়ের আসরে সকলের মুখেই হাসি লেগে থাকে। হাসপাতালে উপস্থিত সকলের চোখ ছিল ভেজা। হেদার বোধহয় জীবনের শেষ শক্তিটুকু সঞ্চয় করে রেখেছিলেন দৃঢ়ভাবে বিয়ের সময়ের প্রতিশ্রুতিগুলি উচ্চারণ করার জন্য। সেই কথাগুলিই ছিল তার শেষ কথা। বিয়ের পর আর মাত্র ১৮ ঘণ্টা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করতে পেরেছিলেন হেদার।

আজকালের খবর/এসএ



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮।  বিজ্ঞাপন- ০১৯৭২৫৭০৪০৫, ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সাকুলের্শন- ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com