শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮
জলবায়ু পরিবর্তন: দুর্নীতির কারণে সহায়তা কমিয়ে দেয়ার হুমকি দাতাদের
অনলাইন ডেস্ক
Published : Wednesday, 3 January, 2018 at 6:33 PM

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকার ইতিমধ্যে প্রায় ৪০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে৷ বিদেশি সহায়তাও এসেছে প্রায় ৩০০ মিলিয়ন৷ তবে বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতির কারণে সহায়তার পরিমাণ কমিয়ে দেয়ার হুমকি দিচ্ছে তারা৷

বাংলাদেশে প্রায় এক হাজারেরও বেশি নদী ও খাল আছে৷ বঙ্গোপসাগরে পানির উচ্চতা বাড়ছে৷ এছাড়া প্রায়ই ঝড় আর অতিবৃষ্টি হচ্ছে৷ ভূমি যাচ্ছে হারিয়ে৷

বরগুনা জেলার একটি গ্রামের বাসিন্দারা বলছেন, নদীভাঙন থেকে গ্রাম রক্ষা করতে অতীতে নদীতে বাঁধ দেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছিল, কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি৷

মাহফুজুল হক প্রায়ই এ ধরনের গল্প শোনেন৷ তিনি আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী সংগঠন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের হয়ে কাজ করেন৷

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় নেয়া অভিযোজন ও মিটিগেশন সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রকল্প ও সেগুলোর অর্থায়ন সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ তিনি৷ তিনি বলেন, ‘‘জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় সহায়তা হিসেবে বাংলাদেশ বিদেশি অর্থ পাচ্ছে৷ কিন্তু প্রত্যাশা অনুযায়ী তা পর্যাপ্ত নয়৷ এর পরিমাণ বাড়াতে হবে৷ সব মিলিয়ে আমরা এখন পর্যন্ত ৭০০ মিলিয়ন ডলার পেয়েছি, যার বেশিরভাগই এসেছে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে৷''

সরকার প্রায় ৪০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে৷

প্রকল্পের আওতায় এমন সব স্কুল তৈরি করা হয়েছে, যেখানে দুর্যোগের সময় মানুষ আশ্রয়ও নিতে পারবে৷ তবে এ ধরনের ভবন তৈরির কাজ ব্যয়বহুল৷ এবং অনেক সময় দেখা যায়, যেখানে বেশি দরকার, সেখানে এমন ভবন নেই৷

কীভাবে এবং কোথায় অর্থ ব্যয় হচ্ছে তার খেয়াল রাখে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল৷

বরগুনার একটি স্কুল কাম জরুরি আশ্রয়কেন্দ্র এমন জায়গায় নির্মাণ করা হয়েছে যেখান থেকে বেশিরভাগ গ্রাম অনেক দূরে অবস্থিত৷ প্রশ্ন হলো, এর পেছনে কি লক্ষ লক্ষ টাকা ব্যয় করা হয়েছে? করলে কেন? মাহফুজুল হক বলেন, ‘‘জলবায়ু তহবিল থেকে এখানে অর্থ ব্যয় করা হয়েছে৷ প্রকল্পগুলোতে ঠিকমত অর্থ ব্যয় হয়েছে কিনা তা অনেকসময় বোঝা কঠিন হয়৷ তবে এটা খুবই ব্যতিক্রমী একটা ঘটনা যেখানে আমরা দেখছি যে, একটা স্কুল ঠিকমত ব্যবহৃত হচ্ছে না৷''

কেন এমন এক জায়গায় স্কুল তৈরি করা হয়েছে তার ব্যাখ্যা পাওয়া কঠিন৷ হক এটি জানেন না – কিংবা বলতে চান না৷

বাংলাদেশে সমালোচনা করা বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে৷ মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে সরকারের অনেক সমালোচক নিখোঁজ হয়েছেন৷

জার্মানির রাষ্ট্রদূত টোমাস প্রিনৎস অবশ্য কথা বলতে ভয় পান না৷ অনেক বাংলাদেশি হয়ত তার সঙ্গে একমত হবেন, যদিও তাঁরা হয়ত সে কথা স্বীকার করবেন না৷ টোমাস প্রিনৎস বলেন, ‘‘এই দেশে উন্নয়নের পথে সবচেয়ে বড় বাধা দুর্নীতি, বলে আমি মনে করি৷ এই দেশের দরকার দুর্নীতিমুক্ত সরকার ও সরকারি প্রতিষ্ঠান৷ এক্ষেত্রে সবার আগে যেটা থাকা উচিত তা হচ্ছে, রাজনৈতিক সদিচ্ছা৷ কিন্তু তেমন কোনো লক্ষণ আমি দেখছি না৷''

বাংলাদেশে অনেক বাজার নদীর কাছে অবস্থিত৷ যে ভবনগুলোতে এগুলো অবস্থিত সেগুলো বন্যা ও সাইক্লোনের মুখে দাঁড়িয়ে থাকার মতো মজবুত নয়৷

একটি আশ্রয়কেন্দ্র পর্যাপ্ত উঁচু হতে হবে কিংবা উঁচু স্থানে অবস্থিত হতে হবে যেন বন্যার সময় মানুষ সেখানে আশ্রয় নিতে পারে৷

দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে জলবায়ু তহবিল থেকে সরে আসার হুমকি দিচ্ছে বিদেশি দাতারা৷

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল প্রকল্প পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা আরও উন্নত করার আহ্বান জানিয়েছে৷ মাহফুজুল হক বলেন, ‘‘সরকার এই সব পরিস্থিতি থেকে শিক্ষা নিতে আগ্রহী৷ ক্রমান্বয়ে তারা এ সব বিষয় তাদের পরিকল্পনা ও নীতিতে অন্তর্ভুক্ত করছে৷ ফলে এটি বাংলাদেশকে জলবায়ু তহবিল থেকে আরও টাকা পেতে সহায়তা করছে৷''

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে তাৎক্ষণিকভাবে ঝুঁকিতে পড়তে পারে এমন দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি৷ তাই প্রভাব মোকাবিলার জন্য যেকোনো সাহায্য পেতে আগ্রহী দেশটি৷- ডিডব্লিউ

আজকালের খবর/এসএ



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮।  বিজ্ঞাপন- ০১৯৭২৫৭০৪০৫, ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সাকুলের্শন- ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com