শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭
নায়ক শাকিবের ক্রিয়া, অতঃপর প্রতিক্রিয়া
সোলায়মান মোহাম্মদ
Published : Thursday, 7 December, 2017 at 5:12 PM

শাকিব ও অপুর ডিভোর্সের বিষয়টি সামাজিক যোগোযোগ মাধ্যমে ভীষণভাবে আলোচিত ও সমালোচিত হচ্ছে। এক কথায় টক অব দ্যা কান্ট্রি বলা যেতে পারে। আমার ফেসবুকে দেশের শীর্ষস্থানীয় প্রায় সবগুলো নিউজ পোর্টালে লাইক দেওয়া থাকার কারণে প্রতিনিয়তই সব পোর্টাল থেকে শাকিব, অপুর তালাকের বিষয়টি ফলাউ করে উঠে আসছে। এইতো মাস কয়েক আগে অনেক নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে তারা সংসার শুরু করলেন। তাদের রাজপুত্রের মতো একটি ফুটফুটে সন্তানও রয়েছে। ২০০৮ সালের ৮ এপ্রিল অপু বিশ্বাস ও শাকিব খান বিয়ে করেছিলেন। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতার একটি হাসপাতালে তাদের সন্তান হয়। নাম রাখা হয় আব্রাহাম খান জয়।

সিনেমা পাড়াতে স্বামী স্ত্রীর ছাড়াছাড়ি নতুন ঘটনা নয়। তাদের সংসার ভাঙার এমন অবস্থা হয়েছে যে কোনো অভিনেতা বিয়ে করলে সেগুলো নিউজ বা ফেসবুকে পোস্ট হলে অনেক মানুষই তাৎক্ষণিক বলে ফেলে ডির্ভোস কবে হচ্ছে? ডিভোর্সের বিষয়টি রীতিমতো অনেক তারকাদের কাছে ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। সকালে বিয়ে বিকালে ডিভোর্স এমন অবস্থা।

কে কাকে ডিভোর্স দেবে, না দেবে এটা নিয়ে এতো মাতামাতি করার কি আছে। সংসার করবে বা করবে না এটা যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার। এটা নিয়ে এতো লেখালেখির কি আছে। আমিও প্রথমে তাই ভেবেছিলাম। কিন্তু যখন এলাকার একটি বাজার থেকে হেঁটে বাড়িতে আসছিলাম, তখন আমার সামনে হাঁটছিল মাধ্যমিক পর্যায়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী। তারা একে অপরের সঙ্গে শাকিব অপুর তালাকের বিষয়টি নিয়ে কথোপকথন করছিলেন। বেশ গুরুত্ব ও রসবোধ নিয়েই তারা আলাপচারিতায় ছিলেন। তাদের মধ্যে যে এই তালাকের বিষয়টি একটি ভিন্ন ধরণের রসবোধ বা হেয়ালিপনাময় একটা কিছুর প্রভাব বিস্তার করছিল সেটা বুঝতে বাকী থাকল না।

এই তালাকের বিষয়টি যে শিশুদের মনেও প্রভাব ফেলেছে তা সত্যিই অস্বীকার করার উপায় নেই। সুতরাং বিষয়টি আমি মনে করি এখন শুধুমাত্র ব্যক্তিগত পর্যায়ে নেই। যেখানে লিঙ্গবৈষম্য দূর করা বা নারীদের অধিকার বাস্তবায়নের জন্য সমাজ থেকে রাষ্ট্রের উচ্চ পর্যায় পর্যন্ত দুশ্চিন্তার শেষ নেই। সেখানে একজন সেলিব্রেটির এইভাবে একতরফাভাবে ডিভোর্স দিয়ে দেওয়া সমাজ বা দেশের জন্য কতটুকু মঙ্গল বয়ে আনবে।

একজন সংখ্যালঘু পরিবারের মেয়েকে এভাবে ভালোবেসে ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করে সন্তান জন্ম দিয়ে সামান্য কারণেই ডিভোর্স দেওয়াটাও কতটা যুক্তিযুক্ত সেটাও ভেবে দেখতে হবে। এ বিষয়ে অপু প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। আজকে যদি অপু বিশ্বাস তার যোগ্য বিচার না পান, তাহলে প্রমাণ হবে নারীরা শুধুই পুরুষের লালসার শিকার। ঘরের কোনে বসে শুধু তাদের সন্তান লালন পালন করাই নারীদের একমাত্র কাজ। সমাজের নি¤œস্তরে তো বটেই, দেশের আধুনিকতার শীর্ষে থেকেও যে নারীরা পদে পদে লাঞ্চিত ও অবহেলিত হচ্ছে তা এতে প্রমাণিত হবে।

অন্যদিকে শাকিব ও অপুর বিয়ে ভাঙার বিষয়টি দেশের সর্বস্তরের মানুষের কাছে যুগ যুগ ধরে গড়ে উঠা পরিবারপ্রথা বা বিবাহ বন্ধনের মাধ্যমে যে সুনিয়ন্ত্রিত ও সু-দৃঢ় সম্পর্ক স্থাপিত হয় তা ধ্বংসের একটি আলামত মনে হচ্ছে। জাতীয় পুরুস্কারপ্রাপ্ত অভিনেতার কাছ থেকে জাতি কী শিখল এটিই মূল প্রশ্ন? দেশের ৬ কোটি তরুণ সমাজ কী শিখল?

অপু বিশ্বাস ও শাকিব খান বাংলাদেশের সম্পদ তাতে কোনো সন্দেহ নেই। শাকিব খান ও অপুকে বাংলাদেশের আধুনিক সিনেমার কর্ণধার বললে খুব বেশি ভুল হবে না। বাংলার সকল স্তরের সব বয়সের মানুষ অপু, শাকিব বলতে পাগল। অনেকেই শাকিবের মতো কথা বলতে চায় আবার অনেকেইে অপুর মতো হাসতে চায়। ১৭ কোটি মানুষের মধ্যে তাদের ভক্ত প্রায় সবাই। চিরাচরিত নিয়ম অনুযায়ী মানুষ জীবনে যত বড় হবে তার কাছে সমাজ বা দেশের ততবেশি চাওয়া বাড়বে এটাই স্বাভাবিক।

দুই দুইবারের জাতীয় চলচ্চিত্রের শ্রেষ্ঠ পুরস্কারপ্রাপ্ত একজন উঁচুমানের অভিনেতার কাছ থেকে জাতি এ ধরনের অনাকাঙ্খিত আচরণ আশা করে না। দেশে বিদেশে আরো অনেক নামীদামী অভিনয় শিল্পি আছেন যারা দিব্বি সুখে শান্তিতে সংসার করছেন। আবার সিনেমা জগতেও সেরা অবস্থান ধরে রাখছেন।

আমরা চাই শাকিব অপু এক সঙ্গে সংসার করুক। তাদের সন্তান পিতামাতার আদর ভালোবাসা একই ছাদের নিচ থেকে একসঙ্গে পাক এটাই প্রত্যাশা। সংসারে ভুল বুঝাবুঝি হতেই পারে। বিশ্বাস করি সকল ভুলের অবসান ঘটিয়ে আবার তারা নতুনভাবে নতুন আঙ্গিকে দেশের জন্য কাজ করবে। আগামীর প্রজন্মকে সঠিক দিক নির্দেশনার মাধ্যমে এগিয়ে নেবে। তাদের সন্তান আব্রহাম খান জয়কে নিয়ে সুখে-শান্তিতে বসবাস করবে এমনটাই সবার কামনা।
 
সোলায়মান মোহাম্মদ: কলাম লেখক


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮। বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭৮৭-৬৮৪৪২৪, ০১৭৯৫৫৫৬৬১৪, সার্কুলেশন : +৮৮০১৭৮৯-১১৮৮১২
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com