শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭
স্বৈরাচার পতন দিবস আজ
নিজস্ব প্রতিবেদক
Published : Wednesday, 6 December, 2017 at 12:53 PM

আজ ৬ ডিসেম্বর স্বৈরাচার পতন দিবস। ১৯৯০ সালের এ দিনে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী জনতার প্রতিবাদ, প্রতিরোধ আন্দোলন ও গণ-অভ্যুত্থানের মুখে স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পতন হয়। 
 
আজ স্বৈরাচার পতন দিবস। ১৯৯০ সালের এই দিনে গণ-আন্দোলনের মুখে স্বৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পদত্যাগে বাধ্য হন।

এর মধ্য দিয়ে এরশাদের ৯ বছরের স্বৈরশাসনের অবসান ঘটে এবং দেশ গণতান্ত্রিক ধারায় ফিরে আসে। দিবসটির স্মরণে দেওয়া এক বাণীতে গণতন্ত্রকে এগিয়ে নিতে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১৯৮২ সালের মার্চে তৎকালীন সেনাপ্রধান এরশাদ রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করেন। শুরু থেকেই এ দেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ সামরিক স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে থাকে। প্রতিবাদ জোরদার হলে ১৯৮৪ সালের ডিসেম্বরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মঘট পালন করতে গিয়ে বিডিআরের গুলিতে নিহত হন ছাত্রনেতা শাজাহান সিরাজ। বুকে-পিঠে ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরাচার নিপাত যাক’ স্লোগান নিয়ে যুবলীগকর্মী নূর হোসেন ১৯৮৭ সালে ঢাকায় এক মিছিলে পুলিশের গুলিতে নিহত হন। ১৯৯০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জাসদ ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ডাক্তার মিলনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। গণতন্ত্রের পক্ষে এসব আত্মদান পুরো দেশবাসীকে আন্দোলিত করে। এরই ধারাবাহিকতায় ৬ ডিসেম্বর এরশাদের পতন হয়।

শেখ হাসিনা তাঁর বাণীতে জনগণের উদ্দেশে বলেন, ‘আসুন, গণতন্ত্রের ভিত্তিকে আরো সুদৃঢ় ও শক্তিশালী করে দেশের উন্নয়ন ও জনগণের কল্যাণে সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করি। গণতন্ত্র মুক্তি দিবসে এই হোক আমাদের দৃঢ় অঙ্গীকার। ’ তিনি জানান, ‘আওয়ামী লীগ নব্বই-পরবর্তী দুই দশকে গণতন্ত্র, ভোট ও ভাতের অধিকার রক্ষায় দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেছে। বাংলাদেশের সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে অবৈধ ক্ষমতা দখলের পথ রুদ্ধ করা হয়েছে। ’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘স্বৈরাচারী শাসন উত্খাত করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, জনগণের ভোট ও মৌলিক অধিকারসমূহ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আমরা দীর্ঘ সংগ্রাম করি। এ আন্দোলন-সংগ্রামে দেশের মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেয়। নূর হোসেন, বাবুল, ফাত্তাহ, ডা. মিলনসহ অগণিত গণতন্ত্রকামী মানুষ আত্মাহুতি দেন। স্বৈরাচারী শাসক গণ-আন্দোলনের কাছে নতি স্বীকার করতে বাধ্য হয়। শহীদদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয় গণতন্ত্র। ’

গণতন্ত্রকে স্থায়ী রূপ দেওয়ার আহ্বান খালেদা জিয়ার : গতকাল স্বৈরাচার পতন ও গণতন্ত্র মুক্তি দিবস উপলক্ষে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গণতন্ত্রকে স্থায়ী রূপ দিতে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী স্বাক্ষরিত বাণীতে বেগম জিয়া বলেন, ‘৬ ডিসেম্বর আমাদের জাতীয় ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৯০ সালের এই দিনে দীর্ঘ ৯ বছরের অগ্নিঝরা আন্দোলনের পর পতন ঘটেছিল সামরিক স্বৈরশাসক এরশাদের। ’ তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের গণতন্ত্র বারবার হোঁচট খেয়েছে তার অগ্রযাত্রায়। কিন্তু এ দেশের গণতন্ত্রপ্রিয় মানুষ সব বাধাকে অতিক্রম করে গণতন্ত্রের পথচলাকে নির্বিঘ্ন করেছে। শত শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র এখনো শঙ্কামুক্ত নয়। ’ দিবসটি উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজকালের খবর/আরএম



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮। বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭৮৭-৬৮৪৪২৪, ০১৭৯৫৫৫৬৬১৪, সার্কুলেশন : +৮৮০১৭৮৯-১১৮৮১২
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com