শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭
শিক্ষাখাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে ১০ দফা সুপারিশ দুদকের
নূরুজ্জামান মামুন
Published : Sunday, 13 August, 2017 at 12:03 AM, Update: 13.08.2017 12:06:35 AM

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের অস্বচ্ছতা ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে এই মন্তব্য করে শিক্ষাখাতে শৃঙ্খলা ফেরাতে ১০ দফা সুপারিশ প্রণয়ন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সম্প্রতি রাষ্ট্রপতির কাছে জমা দেওয়া দুদকের ২০১৬ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে এসব সুপারিশ করা হয়েছে।  সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করা হলে শিক্ষাখাতে শৃঙ্খলা ফেরার পাশাপাশি মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এটা নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে উচ্চশিক্ষা জাতির জন্য আত্মঘাতী হবে। এ জন্য এসব প্রতিষ্ঠান স্থাপনের অনুমতি প্রদানের বিষয়টি সচেতনভাবে পর্যালোচনা করতে হবে। মেধার ভিত্তিতে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে মানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগে পৃথক পাবলিক সার্ভিস কমিশন গঠনের সুপারিশ করে বলা হয়েছে, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায়কৃত অর্থ খরচের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে। ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে সব ধরনের অর্থ আদায় করতে হবে। বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আয়-ব্যয় নিরীক্ষা করতে হবে। মানসম্মত শিক্ষার জন্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের বরেণ্য ব্যক্তিত্ব, জেলা প্রশাসকের সমন্বয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ‘শিক্ষার মান তদারকি কমিটি’ অথবা ‘শিক্ষার মান্নোয়নে নাগরিক কমিটি’ গঠন করতে হবে। সব ধরনের পাঠ্যপুস্তকের ই-বুক প্রণয়ন এবং জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের ওয়েব সাইটে ই-বুক আপলোড করা, প্রতিটি ক্লাসের পাঠ্যবইয়ে নৈতিক শিক্ষার অধ্যায় সংযোজন ও বিদ্যমান অধ্যায়ে মানোন্নয়নসহ শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের সামনে নৈতিকতা রোল মডেল হতে পরে সে ব্যবস্থা করা। এজন্য শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও মটিভেশন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। 

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থী ভর্তি, পরীক্ষার সনদ ও অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ রেগুলেটরি অথরিটি গঠনের সুপারিশ করে দুদক বলেছে, ঢালাওভাবে প্রতিষ্ঠান স্থাপনের অনুমতি দেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। 

পাবলিক পরীক্ষার সময় এক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অন্য প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষার হল পরিবর্তনের পরিবর্তে শিক্ষক বদলির ব্যবস্থা করা, সরকারি স্কুল-কলেজের ‘অপসন’ দিয়ে আত্মীকরণের মাধ্যমে পছন্দমাফিক সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্থায়ীভাবে আত্মীকরণ করে বদলি প্রথার বিলোপের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ এবং বদলির জন্য একটি স্বচ্ছ নীতিমালা করার সুপারিশ করে দুদক বলেছে, বদলির কারণে ঘুষবাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটছে। মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষা ও শিক্ষক ব্যবস্থাপনায় জবাবদিহি নিশ্চিত করতে অতিদ্রæত মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর প্রতিষ্ঠারও সুপারিশ করেছে দুদক। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের গতিশীলতার জন্য মাঠপর্যায়ে আরও যোগ্য কর্মকর্তা নিয়োগ করতে হবে। বিভাগীয় পর্যায়ে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের জন্য যুগ্ম সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তাকে পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দিয়ে বিকেন্দ্রীকরণ করার সুপারিশ করে বলা হয়েছে, শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য আরও বেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। শিক্ষার মানোন্নয়নে জেলা উপজেলার সব প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তাদের কাজে লাগানো যায় কিনা তা পরীক্ষা করা যেতে পারে বলে মতামত তুলে ধরেছে। 

প্রতিবেদনে শিক্ষাখাতের বেশ কিছু সমস্যা নিরূপণ করে সংস্থাটি বলেছে, মেধার ভিত্তিতে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে মানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ না হওয়া, মানসম্মত শিক্ষাদান পদ্ধতির অভাব, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা কমিটির স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা না থাকা, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায়কৃত অর্থ ব্যয়ের অস্বচ্ছতা, পাঠ্যপুস্তক ই বুক ভার্সন না থাকায় শিক্ষাখাতে দুর্নীতি ঘটছে। এছাড়াও কতিপয় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ শিক্ষার্থী ভর্তি, পরীক্ষার সনদ সংক্রান্ত অভিযোগ নিষ্পত্তির কোনো পদ্ধতি নেই। কমিশন মনে করে, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের ব্যাপারে সুস্পষ্ট ব্যবস্থা না নিলে দুর্নীতি মারাত্মক রূপ নিতে পারে। এসব মানহীন ও নিয়ন্ত্রণহীন বেসরকারি উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতির জন্য আত্মঘাতী হবে। তাই বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের অনুমতি প্রদানের বিষয়টি আরও গুরুত্বের সঙ্গে পর্যালোচনা করা প্রয়োজন।  প্রসঙ্গত, শিক্ষকদের জাল সনদ, কোচিংবানিজ্য বন্ধে সাঁড়াশি অভিযান, শিক্ষার্থীদের নৈতিকতা শেখাতে বিক্রেতাবিহীন সততা স্টোর চালুসহ বেশ কিছু কার্যক্রম পরিচালনা করছে দুদক।

আজকালের খবর/এসএ



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : আজিজ ভবন (৫ম তলা), ৯৩ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০।
ফোন : +৮৮-০২-৪৭১১৯৫০৬-৮। বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৭৮৭-৬৮৪৪২৪, ০১৭৯৫৫৫৬৬১৪, সার্কুলেশন : +৮৮০১৭৮৯-১১৮৮১২
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com