বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭
পবিত্র কাজে ভোগান্তি কাম্য নয়
রায়হান আহমেদ তপাদার
Published : Saturday, 12 August, 2017 at 6:13 PM

দিন দিন জটিল হয়ে উঠছে হজযাত্রা। প্রতিবারই হজ মৌসুমে কোনো না কোনো জটিলতা ও সঙ্কট দেখা দেবে- এটা একটা রুটিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। হজ মৌসুমে হজযাত্রীদের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠামিশ্রিত মুখগুলো দেখে নিজেকে বড় অসহায় মনে হয়। ক্ষোভ আর দহনকে আরও বাড়িয়ে দেয় এমন অবস্থায় বিমান কর্তৃপক্ষ, হজ ক্যাম্প, ধর্ম মন্ত্রণালয় ও এজেন্সির মালিকদের পরস্পরবিরোধী বক্তব্য। তাদের অদক্ষতা ও সমন্বয়হীনতা পরিস্থিতি আরও জটিল করে- যা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

আমরা মনে করি, সামগ্রিক ভাবে হজ ব্যবস্থাপনায় আরও স্বচ্ছতা থাকা দরকার।  সেটা সরকারি হোক বা বেসরকারি হোক। আমাদের দেশের মানুষজন একটি নির্দিষ্ট বয়সে এসে ইবাদতের দিকে আগের তুলনায় অনেক বেশি ঝুঁকে পড়েন। তাদের চিন্তা-চেতনা ও ইবাদতের মাধ্যমে একটাই প্রার্থনা, মৃত্যুর আগে আল্লাহতায়ালা তাদের হজ করার সৌভাগ্য নসিব করেন। আর এই সুবাদে প্রতি বছরই একটি নির্দিষ্ট সময়ে শুরু হয় এই হজ প্রক্রিয়া। হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলমান মুখিয়ে থাকেন কখন আসবে সেই ক্ষণ। অনেকেই সারাজীবনের কষ্টার্জিত অর্থের একটা অংশ থেকে হজ করার ইচ্ছা পোষণ করেন। তবে বিস্ময়কর ব্যাপার হলো, এই ধর্মপ্রাণ মানুষদের হাতে যত টাকাই থাকুক না কেন, তারা সাধারণত নিজেদের পৈতৃক সম্পত্তি বিক্রি করেই হজে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পবিত্র স্থানে যেতে হলে পবিত্র মাটি বিক্রি করেই যেতে হবে, এটাই তাদের বিশ্বাস।

অন্যদিকে সামর্থ্যবানদের জন্য আল্লাহ হজ ফরজ করে দিয়েছেন। এতে বিত্তশালী ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের হজ করতেই হবে-এমন ধর্মীয় বিধান রয়েছে।

কিন্তু পরিতাপের বিষয় হলো, প্রতিটি বছরই হজে যাওয়ার সময় হাজীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এবারও তাই দেখতে হলো। এবার যেন দুর্ভোগের মাত্রা আগের তুলনায় অনেক বেশি। প্রায় ৩০-৪০ হাজার হাজীর হজে যাওয়ার বিষয়টি একরকম অনিশ্চয়তার চরম পর্যায়ে উপনীত হয়েছে।

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে হজ অন্যতম। কালেমা, নামাজ, রোজা, হজ ও জাকাত। এই পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে হজই একমাত্র ইবাদত যেটি করতে চাইলে আর্থিক ও শারীরিক উভয় দিক থেকে ফিট থাকতে হয়। সমস্ত বিশ্বের মুসলমানদের মধ্যে হজ একটি কাক্সিক্ষত এবং প্রত্যাশিত ইবাদত। বাংলাদেশ একটি মুসলিম প্রধান দেশ। বিশ্বের অন্যান্য মুসলিম দেশের তুলনায় ভারত উপমহাদেশের মানুষ বিশেষ করে ইন্ডিয়া ও বাংলাদেশের মুসলমানরা ইসলামের আহকাম আরকানকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। বাংলাদেশের মুসলমানরা ছোট থেকেই স্বপ্ন দেখে জীবনে একবার হলেও পবিত্রতম ভ‚মি যেখানে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানুষ জন্মগ্রহণ করেছিলেন সেই তীর্থ ভ‚মিতে যাবেন।

তথ্যসূত্রে জানা যায়, সৌদি আরবের মন্ত্রিপরিষদ গত বছরের ৭ আগস্ট নতুন ভিসা পদ্ধতি অনুমোদন করে, যা ২ অক্টোবর কার্যকর হয়। যাতে স্পষ্টভাবে বলা ছিল, অতিরিক্ত ফি হিসেবে ২ হাজার রিয়াল বাড়ানোর হয়েছে। অথচ লজ্জা ও পরিতাপের বিষয় হলো, এই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে সরকারের জারি করা হজ প্যাকেজের কোথাও এই বাড়ানো অতিরিক্ত রিয়ালের কথা উল্লেখ নেই। যদিও ধর্ম মন্ত্রণালয়কে তা অনেক আগেই অবহিত করা হয়েছিল। এই অতিরিক্ত ফি সংক্রান্ত কারণে অনেকের ভিসার প্রসেসিং বা তা পেতে দেরি হচ্ছে। কিন্তু এতে করে হজযাত্রা শুরুর প্রথম ১৪ দিনে যাত্রী সংকটে ১৯টি ফ্লাইট বাতিল হয়েছে।

এমতাবস্থায় সৌদি সিভিল অ্যাভিয়েশন যদি অতিরিক্ত কোনো স্লটের অনুমোদন না দেয়, তাহলে নিশ্চিতভাবে বলা যায় হাজার হাজার হাজীর হজে যাওয়ার বিষয়টি অনিশ্চিত। একদিকে বিমানের শতকোটি টাকা ক্ষতি, অন্যদিকে হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলমানের পবিত্র ইচ্ছার অপমৃত্যু- যা জাতি কখনো সহজে মেনে নিতে পারে না। আমাদের দেশের অধিকাংশ হজে গমনেচ্ছুদের বয়স ৫০ থেকে ৬০ বছরের কোটায়। যাপিত জীবনের শেষ পর্যায়ে এসে হজযাত্রীদের লালিত স্বপ্নের এমন মৃত্যু হবে, তা তারা কখনো চিন্তাও করেনি। সুতরাং বলা যেতেই পারে, প্রতিবছরই ধর্ম মন্ত্রণালয়ের এমন গাফিলতির শিকার হন এসব ধর্মপ্রাণ মানুষ।

বাংলাদেশের হাজীরা শুধু যে ফ্লাইট সংক্রান্ত জটিলতায় ভোগেন তা কিন্তু নয়। তারা সাধারণত সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে হজে গিয়ে থাকেন। এসব এজেন্সির মাঠ পর্যায়ের মোয়াল্লেম বা মধ্যস্থতাকারী কোনো হুজুর থাকেন। এই হুজুর বা আলেমরা অনেকেই অনেক সময় অর্থের লোভে গ্রামের সহজ-সরল মানুষকে বোকা বানিয়ে নির্ধারিত টাকার চেয়ে অনেক বেশি টাকা হাতিয়ে নিয়ে থাকে। আবার এমন কথাও শোনা যায়, হুজুর বা মোয়াল্লেমরা প্রথমে নানা সুবিধার কথা বললেও পরে তার কোনো কিছুই বাস্তবে দেখা যায় না। বাংলাদেশের হাজি ক্যাম্প থেকে শুরু করে মক্কা-মদিনার সব জায়গাতেই হাজীদের থাকা-খাওয়া থেকে কোরবানি পর্যন্ত অনিয়ম ও দুর্ভোগের চরম পরীক্ষা দিতে হয়।

হাজীরা যেহেতু একমাত্র আল্লাহকে রাজি ও খুশি করার জন্য সেই মহান প্রতিপালকের আহ্বানে সাড়া দিয়ে পবিত্র মক্কা ভ‚মিতে গিয়ে থাকেন সেহেতু তারা শত কষ্টের পরও টুঁ-শব্দটিও করেন না। মোটামুটি মৃত্যুর প্রস্তুতি নিয়েই তারা বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। ধর্মপ্রাণ এসব আল্লাহর মেহমানদের সঙ্গে তাদের ধর্মীয় দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে শুরু করে হজের প্রতিটি পর্যায়ে এমনটা আমরা কখনো আশা করি না। আমরা মনে করি, সরকার ও দেশের ভাবমর্যাদা রক্ষার পাশাপাশি হজের ধর্মীয় তাৎপর্য ও পবিত্রতা বজায় রাখার স্বার্থে হজ ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়াকে দুর্নীতিমুক্ত, স্বচ্ছ, গতিশীল ও জনবান্ধব করা আবশ্যক। ভয়-ভীতি, লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে থেকে হজযাত্রা সাবলীল ও সহজ রাখার প্রক্রিয়া খুব কঠিন কিছু নয়। দুঃখজনক হলো- হজযাত্রা নির্বিঘœ করার দাবি দীর্ঘদিনের হলেও দেশের হাজী ও হজ গমনেচ্ছুরা বিড়ম্বনা থেকে কিছুতেই মুক্তি পাচ্ছেন না। হজ সাংবাৎসরিক ফরজ ইবাদত। এর সঙ্গে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের আবেগ-অনুভ‚তি ও বিশ্বাসের প্রশ্ন জড়িত। অথচ দেখা যায়, প্রতিবছর হজ পালনেচ্ছুদের নানারকম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রতারণা ছাড়াও হজযাত্রীরা বিভিন্ন ধরনের অব্যবস্থাপনার শিকার হচ্ছেন, যা মোটেই কাম্য নয়। হজযাত্রীদের কাঙ্খিত মানের সেবা প্রদানের পাশাপাশি এ বছর সবার হজযাত্রা নিশ্চিত করতে সরকার কার্যকর পদক্ষেপ নেবে- এটাই প্রত্যাশা।

বর্তমান সরকারের অনেক জায়গায় ঈর্ষণীয় সফলতা থাকলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যর্থতার পাল্লাও অনেকাংশে ভারী। যেহেতু বাংলাদেশ সাংবিধানিকভাবে একটি ধর্মীয় রাষ্ট্র সেহেতু ধর্মের প্রতিটি ক্ষেত্রেই তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখা বাঞ্ছনীয়।

রায়হান আহমেদ তপাদার:
লেখক ও কলামিস্ট
Raihan567@yahoo.com



সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সুমনা গণি ট্রেড সেন্টার, (৪ তলা) প্লট-২, পান্থপথ (সার্ক ফোয়ারা মোড়), ঢাকা।
ফোন : ০২-৫৫০১৩২১৪ ফ্যাক্স : ০২-৫৫০১৩২১৫, বিজ্ঞাপন : ০১৭৮৭৬৮৪৪২৪, সার্কুলেশন : ০১৭৮৯১১৮৮১২
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhoborbd.com, www.eajkalerkhobor.com