বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭
গাছের চাহিদা বুঝতে পারে যন্ত্র
অনলাইন ডেস্ক
Published : Tuesday, 8 August, 2017 at 12:51 PM, Update: 08.08.2017 1:38:10 PM

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভবিষ্যতে খাদ্যশস্যের সংকট দেখা দিতে পারে৷ সর্বাধুনিক প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে বিজ্ঞানীরা তাই আগেভাগেই শস্যগুলিকে সেই পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত করার উদ্যোগ নিচ্ছেন৷

গাছপালা আসলে অফুরন্ত কাঁচামালের উৎস৷ গোটা বিশ্বে খাদ্যের উৎস হিসেবে তাই একে ‘সবুজ সোনা' বলা হয়৷ কৃষি উৎপাদন বাড়াতে বিজ্ঞানীরা নতুন প্রজাতি ব্রিড বা প্রজনন করছেন এবং জিন প্রযুক্তির মাধ্যমে তাদের চরিত্রও বদলে দিচ্ছেন৷ এই পরিবর্তনের প্রভাব নিখুঁতভাবে বুঝতে জার্মান গবেষকরা একেবারে নতুন এক পদ্ধতি সৃষ্টি করছেন৷ এর সাহায্যে জীবিত গাছ না কেটে বা মাটি থেকে উপড়ে না ফেলে তার মধ্যে উঁকি মারা সম্ভব হচ্ছে৷

গাছের কতটা আলো, পানি ও পুষ্টির প্রয়োজন, কিছু স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া তা দেখিয়ে দেয়৷ এক রোবট সিস্টেম নির্দিষ্ট চারাগাছের স্থানান্তর, পরিমাপ ও এক্স-রে করে৷ কোন গাছের মধ্যে উৎপাদনশীলতার কতটা সম্ভাবনা লুকিয়ে রয়েছে, এভাবে তা চিহ্নিত করা যায়৷ সারা বিশ্ব থেকে এমন গাছের নমুনা এখানে পাঠানো হয়৷  কৃত্রিমভাবে তাদের যে সব গুণাগুণ বদলে দেওয়া হয়েছে, এখানে তা পরীক্ষা করা হয়৷ ড. আন্দ্রেয়াস ম্যুলার এ বিষয়ে বলেন, ‘‘এখানে এমন প্রযুক্তি রয়েছে, যা দিয়ে গাছপালা, তাদের ক্ষমতা পরিমাপ করা যায়৷ অর্থাৎ গোটা বিশ্বে বিজ্ঞানীরা বিশেষ কৌশল বা প্রযুক্তির সাহায্যে সেই গাছ আদর্শ করে তুলতে যে সব পদক্ষেপ নিয়েছেন, আমরা তার প্রভাব খতিয়ে দেখতে পারি৷ সেই প্রভাবই চাওয়া হয়েছিল কিনা, বুঝতে পারি৷''

ঠিকমতো পুষ্টি পেলে গাছপালা বেড়ে ওঠে৷ গবেষকরা হাইটেক রোবট কাজে লাগিয়ে আদর্শ পরিবেশ নির্ধারণ করতে পারেন৷ কোন গাছের ঠিক কতটা পানি, সার ও আলোর প্রয়োজন, সিস্টেম তা শিখে নিতে পারে৷ ক্যামেরার মাধ্যমে রোবট মালি গাছ পর্যবেক্ষণ করে, গাছের বৃদ্ধি নথিভুক্ত করে এবং সেই গাছের আদর্শ চাহিদা স্থির করে৷

কল্পবিজ্ঞান নয়, বাস্তবেই এমনটা ঘঠছে৷ রোবট তার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে এত কিছু শিখে ফেলেছে যে, এখন সে তার স্রষ্টাকেই টেক্কা দিতে পারে৷ সে বিশেষজ্ঞদের তুলনায় গাছের আরও ভালো দেখাশোনা করতে পারে৷ এখন সেই গবেষকরাই তার কাছে শিক্ষা নিচ্ছেন৷ কারণ তার প্রতিভার ফলে প্রায় ১২ শতাংশ উন্নত বেশি শস্য উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে৷ ড. আন্দ্রেয়াস ম্যুলার বলেন, ‘‘ভবিষ্যতে জলবায়ুর যে অবস্থা হবে, পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে তা অবশ্যই এক রকম হবে না৷ কিন্তু খরা বড় এক সমস্যা হবে, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ অর্থাৎ গাছপালা কীভাবে কম পানি সত্ত্বেও টিকে থাকতে পারবে অথবা তা আরও ভালোভাবে কাজে লাগাবে, সেই চেষ্টা করতে হবে৷''

আর্দ্রতার বিভিন্ন মাত্রা গাছপালার উপর কী প্রভাব ফেলছে, জেনেটিক্স ল্যাবে গবেষকরা তা খতিয়ে দেখছেন৷ উৎপাদনশীল ও আরও শক্তিশালী প্রজাতি সৃষ্টি করাই এর লক্ষ্য৷ এক্ষেত্রে সঠিক সময় নির্ণয় করা একটা বড় বিষয়৷ কোনো গাছ যে সময়ে সবচেয়ে বেশি পানি গ্রহণ করতে পারে, ঠিক সে সময়ে সঠিক পরিমাণ পানি দিলে সবচেয়ে কম অপচয় ঘটবে৷

ঘণ্টায় একবার প্রত্যেকটি গাছের ছবি তোলা হয়৷ সেই সব ছবির সাহায্যে বিজ্ঞানীরা প্রাথমিকভাবে বুঝতে পারেন, কোন গাছ কোন পরিবেশে সবচেয়ে ভালোভাবে বেড়ে উঠতে পারে, সেখানকার মানুষের খাদ্যের যোগান দিতে পারে৷


বিভিন্ন প্রজাতির গাছের ক্ষমতা বুঝতে বিশেষজ্ঞরা সরাসরি গাছের শিকড় খতিয়ে দেখতে চান৷ সেখান থেকেই তো গাছের বৃদ্ধি পরিচালনা করা হয়৷

মানুষের চিকিৎসার মতো গাছপালার ক্ষেত্রেও রেজোনেন্স টোমোগ্রাফি একেবারে নতুন জ্ঞান তুলে ধরছে৷ জীবন্ত গাছ কীভাবে পানি ও পুষ্টি গ্রহণ করছে, তা সরাসরি দেখা যাচ্ছে৷ গবেষকরা শুধু পাতার মধ্যে নয়,  মাটির নীচে গাছের বৃদ্ধির প্রক্রিয়াও দেখতে চান৷

গোটা বিশ্বে এমন কোনো স্থাপনা নেই, যেখানে অসুস্থ মানুষের বদলে ভুট্টার গাছের এক্স-রে করা হয়৷ ৮৪০ মিলিয়ন টন পরিমাণ উৎপাদনের কারণে ভুট্টা পৃথিবীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ শস্য৷ তার বীজে সামান্য উন্নতি ঘটালেও খাদ্যের যোগানের উপর বিশাল ইতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে৷

ত্রিমাত্রিক, রঙিন ছবি টাইম-ল্যাপ্স পদ্ধতিতে বিজ্ঞানীরা মাটির নীচে শিকড় গজানোর ঘটনা, পানি ও পুষ্টির বণ্টন পর্যবেক্ষণ করতে পারেন৷ ১ কোটি ৮০ লক্ষ ইউরো মূল্যের এই প্রকল্পের ফলাফল বাস্তবে কতটা কাজে লাগবে, তা দেখতে বড় পরীক্ষার মাধ্যমে বোঝা যাচ্ছে৷

উড়ন্ত ক্যামেরার মাধ্যমে উদ্ভিদ গবেষকরা  খোলা আকাশের নীচে গাছের বৃদ্ধি পর্যবেক্ষণ করছেন৷ ল্যাবের পূর্বাভাষ স্বাভাবিক পরিবেশেও কাজ করে কিনা, তা তারা দেখতে চান৷ উৎপাদন বাড়াতে সেই জ্ঞান ব্রিডিং ও চাষের কাজে দ্রুত প্রয়োগ করা যেতে পারে৷ বিশ্বের যে সব অঞ্চলে ভবিষ্যতে খাদ্যাভাবের আশঙ্কা রয়েছে, সেখানে গবেষণার এই ফলাফল কাজে লাগতে পারে৷- ডিডব্লিউ 

আজকালের খবর/এসএ







সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : সুমনা গণি ট্রেড সেন্টার, (৪ তলা) প্লট-২, পান্থপথ (সার্ক ফোয়ারা মোড়), ঢাকা।
ফোন : ০২-৫৫০১৩২১৪ ফ্যাক্স : ০২-৫৫০১৩২১৫, বিজ্ঞাপন : ০১৭৮৭৬৮৪৪২৪, সার্কুলেশন : ০১৭৮৯১১৮৮১২
ই-মেইল : newsajkalerkhobor@gmail.com, addajkalerkhobor@gmail.com
Web : www.ajkalerkhoborbd.com, www.eajkalerkhobor.com